আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

টাঙ্গাইল শহরের মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই মারা যাচ্ছে মানুষ। নতুন আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে দিন দিন। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মার্কেট ও শপিংমল খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছে সরকার।

কিন্তু টাঙ্গাইল শহরের মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। বড় বড় মার্কেট ও শপিংমলগুলোর সামনে নেই কোনও জীবাণুনাশক টানেল, নেই কোনও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা। মার্কেটের দোকান গুলোতে ক্রেতা সাধারণের উপচে পড়া ভিড় লেগেই থাকছে।

শহরের মাহমুদুল হাসান কলেজ মার্কেট, নিউ মডার্ন সমবায় সুপার মার্কেট, রাজধানী মার্কেট, হীরা মার্কেট, সাউদিয়া মার্কেট সহ বেশ কয়েকটি মার্কেটে সরেজমিনে ঘুরে লক্ষ্য করা যায়, অধিকাংশ দোকানগুলোতেই কোনও হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা নেই। গায়ের সঙ্গে গা ঘেঁষেই কেনাকাটা করছে মানুষ। রাস্তার পাশের কসমেটিকসের দোকানগুলোতে একে অন্যের উপর দিয়ে ঠেলাঠেলি করেই কেনাকাটা করছেন তারা। উপজেলা শহরগুলোতেও একই অবস্থা। নেই প্রশাসনের তেমন কোনও তদারকি।

ক্রেতা সাধারণের ভিড় সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে অপরূপা শাড়ির পরিচালক কৃষ্ণ চন্দ্র বসাক বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান খোলা রাখার চেষ্টা করতেছি, তবে ক্রেতা সাধারণের ভিড় কিছুটা বেশি।

সাহা সুপারমার্কেটে কাপড় কিনতে আসা মাখন মিয়া বলেন, মার্কেটের দোকানগুলোতে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা নাই, যদি হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা থাকতো তাহলে আমরা অবশ্যই হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতাম। নিরাপদ দূরত্বে বসে কেনাকাটা করার ব্যাপারেও দোকানদারদের কোনও পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যায় না। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে, দোকানদারেরা যদি কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতো, তবে কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতাগণও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলত।

রঙ শাড়ির দোকানদার প্রদীপ সরকার বলেন, কাস্টমারের ভিড় কিছুটা বেশি, তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় কাপড় বিক্রি খুবই কম।

রাস্তার পাশে কসমেটিকের দোকানদার লাল মিয়া বলেন, কাস্টমারদেরকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়াতে বললেও, তারাই ভিড় জমায়।

মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে স্বাস্থ্য বিধির বিষয়ে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ডক্টর মো. আতাউল গনি বলেন, শপিংমলের মালিক ও ব্যবসায়ীদের স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে বার বার বলা হচ্ছে। সচেতনতা বাড়াতে প্রতিনিয়তই ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। জরিমানাও করা হচ্ছে। তারপরও বিষয়টি আরও জোরালোভাবে দেখবেন বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ বিভাগের আরো সংবাদ